1. Dear Guest আপনার জন্য kazirhut.com এর বিশেষ উপহার :

    যেকোন সফটওয়্যারের ফুল ভার্সনের জন্য Software Request Center এ রিকোয়েস্ট করুন।

    Discover Your Ebook From Our Huge Collection E-Books

Islamic বিশ্ব পানি দিবস ও পানি বিষয়ক ইসলামের নির্দেশনা

Discussion in 'Role Of Islam' started by কবি, Mar 22, 2013. Replies: 7 | Views: 710

  1. কবি
    Offline

    কবি Senior Member Writer

    Joined:
    Dec 19, 2012
    Messages:
    1,123
    Likes Received:
    886
    Gender:
    Male
    Reputation:
    72
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    এ বিশ্ব ভূমণ্ডলে আমাদের বেঁচে থাকার জন্য পানির বিকল্প নেই। শুধু বেঁচে থাকা নয়, বরং আল্লাহ পাক যে ইবাদতের মহান উদ্দেশে আমাদের সৃষ্টি করেছেন সেটি তার কাছে গৃহীত হওয়ার জন্য প্রথম শর্ত হলো পবিত্রতা।

    পবিত্রতার প্রথম উপকরণ হচ্ছে পানি। আর তাই মানুষ হিসেবে পানি শুধু আমাদের জীবনধারণের জন্য নয়, বরং প্রকৃত মুসলমান হতেও পানির গুরুত্ব অপরিসীম।

    আজকের পৃথিবীতে কল-কারখানার উৎপাদন এবং নানা কারণে পানি দূষিত হচ্ছে- পাশাপাশি আমরাও দিনদিন এ অমূল্য নেয়ামতের সঠিক ব্যবহার এবং সংরক্ষণ থেকে উদাসীন হয়ে যাচ্ছি। আজকের বিশ্ব পানি দিবসে (মার্চ ২২) শুধু একদিনের জন্য পানি বিষয়ক সচেতনতা নয়, বরং চৌদ্দশ’ বছর আগে থেকেই ইসলাম আমাদের এ মহান নেয়ামতের গুরুত্ব মনে করিয়ে দিয়ে এর ব্যবহারে নির্দেশনা দিয়ে আসছে।

    আল্লাহ পাক যখন এ আকাশ-মাটি সৃষ্টি করলেন এবং তারপর তিনি মানুষ সৃষ্টি করতে চাইলেন তখন প্রথমেই তিনি পানি সৃষ্টি করলেন। এ পানির মধ্যেই তিনি মানুষ এবং সমস্ত সৃষ্টজগতের প্রাণের সূচনা করেছেন। সূরা আম্বিয়ার ৩০ নম্বর আয়াতে আল্লাহ পাক বলেছেন, ‘‘আর আমি তো পানি থেকেই সব প্রাণবান বস্তুকে সৃষ্টি করেছি’’।

    যেসব নেয়ামত ছাড়া এ ভূমণ্ডল অস্তিত্বহীন হয়ে যেতে পারে সেগুলোর মধ্যে পানি অন্যতম। এ মহান নেয়ামতের কথা স্মরণ করিয়ে দিতে আল্লাহ পাক কুরআন শরীফে সর্বমোট ৪৬ বার পানির কথা উল্লেখ করেছেন।সূরা নাহল এর ১০ ও ১১ নং আয়াতে আল্লাহ পাক বলেছেন, ‘‘তিনিই তো আকাশ থেকে বৃষ্টি বর্ষণ করেন এবং তা তোমাদের জন্য পানীয়। এ থেকেই উদ্ভিদসমূহের জন্ম হয়, যেগুলোতে তোমরা পশুচারণ করে থাকো’’।

    সূরা ক্বাফ এর ৯ নং আয়াতে তিনি বলেছেন, ‘‘আমি আকাশ থেকে বরকতময় বারিধারা বর্ষণ করি এবং তা থেকে বাগান এবং তরতাজা শস্য সৃষ্টি করি’’। সূরা বাকারার ১৬৪ নং আয়াত এবং সূরা রূমের ২৪ নং আয়াতেও তিনি আকাশ থেকে বৃষ্টি নামা এবং তারপর পানির ছোঁয়ায় বিশ্ব প্রকৃতির সজিবতাকে তার নেয়ামত হিসেবে স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন।

    সূরা আরাফ ৫১ নং আয়াতে মহান আল্লাহ পাক পানিকে জান্নাতবাসীদের জন্য নেয়ামত এবং পানির অভাবকে জাহান্নামবাসীদের জন্য শাস্তি হিসেবে উল্লেখ করেছেন। আবার পানির মাধ্যমেই তিনি অবাধ্য অনেক জাতিকে ধ্বংস করে দেওয়ার ঘটনা আমাদের জন্য শিক্ষণীয় হিসেবে উল্লেখ করেছেন সূরা হুদের ৩৯ থেকে ৪৪ নং আয়াত পর্যন্ত। সূরা বাকারার ৬০ নং আয়াতে আল্লাহ পাক আমাদের আদেশ করেছেন, ‘‘তোমরা আল্লাহর রিজিক থেকে খাও এবং পান করো কিন্তু পৃথিবীর বুকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে না’’। তিনি বারবার তার নেয়মাতসমূহ অপচয় করা থেকে আমাদের নিষেধ করেছেন। অপচয়কারীকে শয়তানের ভাই হিসেবে উল্লেখ করেছেন। আমাদের দেশ এবং বর্তমান পৃথিবীর গবেষকরা সুপেয় পানির ক্রমবর্ধমান অভাব এবং দূষিত পানির পরিমাণ বৃদ্ধি নিয়ে শঙ্কিত- অথচ এসবের মূলে রয়েছে দৈনন্দিন জীবনে পানি ব্যবহারে আমাদেরই অপচয় এবং উদাসীনতা। বর্তমান আধুনিক পৃথিবীতে পানির জন্য এ হাহাকার তো আমাদেরই কর্মফল।

    প্রিয়তম রাসূল (সা.) বিভিন্ন হাদীসে পানি পান করার আদব শিখিয়েছেন। এগুলো শুধু সুন্নত নয়, বরং এর প্রতিটিতে নিহিত রয়েছে আমাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিধান। মুসলিম শরীফের হাদিসে বর্ণিত রয়েছে, রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘‘তোমার পানির পাত্রকে ঢেকে রাখো এবং বাসনগুলোকে উল্টে রাখো’’। আরেক হাদীসে তিনি পানির বড় পাত্র থেকে সরাসরি মুখ লাগিয়ে গড়গড় করে পান করতে নিষেধ করেছেন। বরং ছোট গ্লাস বা পেয়ালায় ঢেলে তারপর দেখে পান করতে শিখিয়েছেন।

    [​IMG]

    নাসাঈ এবং ইবনে মাজাহ শরীফে বর্ণিত হাদীসে রাসূল (সা.) খাওয়া ও পান করা এবং কাপড় পরাসহ দান সদকায়ও অপচয় করতে নিষেধ করেছেন। একদিন সাহাবী হযরত সাদ বিন আবু ওয়াক্কাস (রা.) বসে ওজু করছিলেন এবং ওই সময় রাসূল (সা.) তার পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তার পানির ব্যবহার দেখে রাসূল (সা.) তাকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘‘এতো অপচয় কেন? সাহাবী অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলেন, অজুর মধ্যেও কি অপচয় হয়? রাসূল (সা.) বললেন, হ্যাঁ, এমন কি প্রবাহিত নদীর পাশে বসেও অজু করার সময় (পানি অযথা খরচ করলে অপচয় হিসেবে গোনাহ হবে)। (ইবনে মাজাহ)

    কিয়ামতের মাঠে যেদিন সব নেয়ামত সম্পর্কে একে একে হিসাব চাওয়া হবে সেদিন কিন্তু বাদ যাবে না পানির কথাও। সামান্য কয়েক ফোঁটা পানির অপচয় আমাদের কাছে আজ খুব বড় গোনাহ মনে না হলেও মহান শক্তিমানের নিয়োজিত ফেরেশতারা সব লিখে রাখছেন। তাই পানি ব্যবহারে আমাদের সজাগ সচেতনতা শুধু বিবেকের দাবি নয়, বরং আমাদের ঈমান ও আমলের জন্যও তা অপরিহার্য। আসুন, এ মহান নেয়ামতের শুকরিয়া আদায়ের পাশাপাশি এর হেফাজতেও আমরা উদ্যোগী হই।

    (সংগৃহীত)
    [fbpop][/fbpop]
     
    Zahir likes this.
  2. mukul
    Offline

    mukul Welknown Member Member

    Joined:
    Aug 5, 2012
    Messages:
    8,643
    Likes Received:
    2,421
    Gender:
    Male
    Location:
    বন পাথারে
    Reputation:
    1,123
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    এতদিন কবি মামার কবিতা দেখেছি, চলনে বলনে কবিত্ব দেখেছি- আজ দেখলাম সাধারনের কাতারে এসে দাড়িয়েছেন।
    পানি নিয়ে আপনার উপস্থাপিত বিষয় জনগুরুত্ব সম্পর্কিত। সকল জাতি ধর্ম নির্বিশেষে সকলের উপযোগী।
    পানি নিয়ে থ্রেডটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। সচেনতার জন্য দরকারী পোষ্ট।
    যাযাকুমুল্লাহ!
    কবি মামাকে :congrats:
     
    কবি and Zahir like this.
  3. Zahir
    Offline

    Zahir Administrator Admin

    Joined:
    Jul 30, 2012
    Messages:
    18,758
    Likes Received:
    5,639
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka, Bangladesh
    Reputation:
    948
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    সুশীতল বিশুদ্ধ পানি আল্লাহ তায়ালার অন্যতম নেয়ামত। এই নেয়ামতের সঠিক ব্যবস্থাপনা করা না গেলে অচিরেই আমরা এই নেয়ামত থেকে মাহরুম হয়ে যাব। আল্লাহ তায়ালা তাঁর নেয়ামতের নবিজি(সাঃ) এর সুন্নত মতাবেক সঠিক ব্যবহার করার তৌফিক দান করুন। আমিন।
    শেয়ার করার জন্য কবি মামাকে দিল থেকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।
     
    কবি and mukul like this.
  4. passionboy
    Offline

    passionboy কাজীর হাট বর্ষসেরা স্টাফ Staff Member Global Moderator

    Joined:
    Aug 20, 2012
    Messages:
    57,467
    Likes Received:
    10,645
    Gender:
    Male
    Location:
    সিটি গেইট, চট্টগ্রাম
    Reputation:
    648
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    পানি ছাড়া কোন প্রাণী বেচে থাকার কথা চিন্তা করা যায় না।
    এটা আল্লাহর অসংখ্য শ্রেষ্ঠ নেয়ামতের মধ্যে অন্যতম।
    দেখা যায় কোন জায়গা থেকে আসলে খাবারের জন্য যত না কষ্ট লাগে তার জন্য বেশি পানির জন্য কষ্ট লাগে।
    অনেক কিছু জানতে পারলাম
    ধন্যবাদ কবি মামা
     
    কবি, Zahir and mukul like this.
  5. abdullah
    Offline

    abdullah Welknown Member Member

    Joined:
    Jul 30, 2012
    Messages:
    5,124
    Likes Received:
    1,439
    Reputation:
    779
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    কঠিন সত্য কথা।
    ধন্যবাদ।
     
    কবি and Zahir like this.
  6. mizansharif
    Offline

    mizansharif Senior Member Member

    Joined:
    Sep 19, 2012
    Messages:
    1,103
    Likes Received:
    365
    Gender:
    Male
    Location:
    পথে প্রান্তরে
    Reputation:
    67
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    পানির গুরুত্ব সম্পর্কে পবিত্র কুরআন ও হাদিস শরীফে ব্যাপক আলোচনা রয়েছে।

    কুরআনে উল্লেখ রয়েছে যে,‘তোমরা যে পানি পান কর সে সম্পর্কে কি তোমরা চিন্তা করেছো? তোমরাই কি পানি মেঘ থেকে নামিয়ে আন, না আমি তা বর্ষণ করি? আমি ইচ্ছা করলে তা লবণাক্ত করে দিতে পারি। তবুও কেন তোমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ কর না?’ (সূরা ওয়াকিয়া, আয়াত ৬৮-৭০)।

    আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘আমি বৃষ্টি গর্ভ বায়ু প্রেরণ করি, তারপর আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করি এবং তা তোমাদের পান করতে দিই। পানির ভান্ডার তোমাদের নিকট নেই’ (সূরা হিজর, আয়াত-২২)।

    কুরআন পাকের আরেকটি আয়াতে উল্লেখ রয়েছে যে, ‘বল, তোমরা চিন্তা করে দেখেছ কি পানি ভূগর্তে তোমাদের নাগালের বাইরে চলে যায়, কে তোমাদেরকে এনে দিবে প্রবাহমান পানি?’ (সূরা মূলক, আয়াত-৬৭)।

    কুরআনে আরও উল্লেখ রয়েছে যে,‘আমি আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করি পরিমিতভাবে তারপর আমি সেই পানি মাটিতে সংরক্ষণ করি, আমি সেই পানি অপসারিত করতেও সক্ষম’ (সূরা মুমিনুন, আয়াত-১৮)।

    কুরআনে আরও উল্লেখ রয়েছে যে,‘তিনিই পৃথিবীকে করেছেন বসবাস উপযোগী এবং এর মাঝে প্রবাহিত করেছেন নদী-নালা (সূরা নমল, আয়াত ৬১)।

    কুরআনে আরও উল্লেখ রয়েছে যে, ‘তুমি কি দেখ না আল্লাহ তায়ালা আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করেন, তারপর ভূমিতে স্রোতরুপে তা প্রবাহিত করেন এবং তা দিয়ে বিচিত্র বর্ণের ফসল উৎপাদন করেন? (সূরা যুমার, আয়াত-২১)।
     
    কবি likes this.
  7. মনিপুরি
    Offline

    মনিপুরি Senior Member Member

    Joined:
    Aug 15, 2013
    Messages:
    4,592
    Likes Received:
    1,113
    Gender:
    Male
    Location:
    Bangladesh
    Reputation:
    161
    Country:
    Bangladesh Bangladesh

    Hello guest, You Need To Sign Up or log in to see the link!

    পানির গুরুত্ব সম্পর্কে পবিত্র কুরআন ও হাদিস শরীফে ব্যাপক আলোচনা রয়েছে।

    কুরআনে উল্লেখ রয়েছে যে,‘তোমরা যে পানি পান কর সে সম্পর্কে কি তোমরা চিন্তা করেছো? তোমরাই কি পানি মেঘ থেকে নামিয়ে আন, না আমি তা বর্ষণ করি? আমি ইচ্ছা করলে তা লবণাক্ত করে দিতে পারি। তবুও কেন তোমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ কর না?’ (সূরা ওয়াকিয়া, আয়াত ৬৮-৭০)।

    আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘আমি বৃষ্টি গর্ভ বায়ু প্রেরণ করি, তারপর আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করি এবং তা তোমাদের পান করতে দিই। পানির ভান্ডার তোমাদের নিকট নেই’ (সূরা হিজর, আয়াত-২২)।

    কুরআন পাকের আরেকটি আয়াতে উল্লেখ রয়েছে যে, ‘বল, তোমরা চিন্তা করে দেখেছ কি পানি ভূগর্তে তোমাদের নাগালের বাইরে চলে যায়, কে তোমাদেরকে এনে দিবে প্রবাহমান পানি?’ (সূরা মূলক, আয়াত-৬৭)।

    কুরআনে আরও উল্লেখ রয়েছে যে,‘আমি আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করি পরিমিতভাবে তারপর আমি সেই পানি মাটিতে সংরক্ষণ করি, আমি সেই পানি অপসারিত করতেও সক্ষম’ (সূরা মুমিনুন, আয়াত-১৮)।

    কুরআনে আরও উল্লেখ রয়েছে যে,‘তিনিই পৃথিবীকে করেছেন বসবাস উপযোগী এবং এর মাঝে প্রবাহিত করেছেন নদী-নালা (সূরা নমল, আয়াত ৬১)।

    কুরআনে আরও উল্লেখ রয়েছে যে, ‘তুমি কি দেখ না আল্লাহ তায়ালা আকাশ থেকে পানি বর্ষণ করেন, তারপর ভূমিতে স্রোতরুপে তা প্রবাহিত করেন এবং তা দিয়ে বিচিত্র বর্ণের ফসল উৎপাদন করেন? (সূরা যুমার, আয়াত-২১)।
    Click to expand...


    এই থ্রেডে আপনার মন্তব্য একটি অসধারন সংযোজন ।
    জীবন ধারনের জন্য পানি যে কত গুরুত্বপূর্ণ সে সম্পর্কে ব্যাখ্যার কোন অবকাশ নাই । অবোধ প্রাণীও পানির তাগিদ অনুভব করে । পানি ছাড়া জীবন অচল । পবিত্র কুরআন শরীফে তাই বারবার পানির উল্লেখ এসেছে । তবে তা পানির গুরুত্ব বোঝানর জন্য নয় । জীবনের জন্য অপরিহার্য এই নিয়ামতের নিয়ন্ত্রন কারী কেবল মাত্র মহান আল্লাহ তা আলা যিনি ইচ্ছা করলে যে কারও উপর থেকে এই নিয়ামত তুলে নিতে পারেন এটা বোঝানর জন্য ।
    এই আয়াত গুলির মধ্য দিয়ে ভূমণ্ডলে পানির চক্রের ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে যা তখনও আবিষ্কৃত হয়নি । যা মহান আল্লাহ তা আলার সৃষ্টির রহস্য এর একটি প্রমান । এ থেকেই তাঁর উপস্থিতি অনুভব করা উচিত, তাঁর প্রতি ও তাঁর অসীম ক্ষমতার প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করা উচিত । এ জন্য পবিত্র কুরআন শরীফের মর্মার্থ বুঝার তৌফিক যেন আল্লাহ আমাদের ও বিশ্ব এর সকল মানুষকে দেন তার জন্য মহান আল্লাহ তা আলার নিকট করুণা প্রার্থনা করি ।
     
    কবি likes this.
  • arn43
    Offline

    arn43 Kazirhut Lover Staff Member Moderator

    Joined:
    Aug 18, 2013
    Messages:
    23,590
    Likes Received:
    3,366
    Gender:
    Male
    Reputation:
    764
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি পোস্ট! আমরা না জেনে না বুঝে অনেক সময় অনেক কিছুর অপব্যবহার করে থাকি। এর মাঝে জীবন ধারনের জন্য অত্যান্ত প্রয়োজনীয় উপাদান পানিও থাকে। অথচ, এই পানি যদি বিশুদ্ধ হয়, তবে তার বিনিময়ে আমাদের যে জীবন রক্ষা হয়, প্রানকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য এর যে কোন বিকল্প নেই, সে কথা একটি বারের জন্যও আমাদের মনে থাকে না! যে কোন খাদ্য দ্রব্যই বিনস্ট করা পাপ! তবে জেনে বুঝে পানি অপব্যায় করা মনে হয় মহাপাপ! হয়তো আমরা সেটা সেভাবে উপলব্ধি করতে পারি না, আমাদের দেশে তথা এই অঞ্চলে পানির সহজলভ্যতার কারনে। কিন্তু একবার যদি মরু অঞ্চল কিংবা পানির অভাব যে সব অঞ্চলে আছে, সেদিকে তাকাই তবে কিছুতেই এই পানির অপব্যবহার করা যে আমাদের কতো বড় অন্যায় সেটা অনুভব করতে পারবো!
    আল্লাহ আমাদের সবাইকে তাঁর দেয়া এই বিশেষ নিয়ামতের সঠিক হেফাযত ও ব্যবহারের তৌফিক দিন। আমিন!

    গুরুত্বপূর্ণ এই পোস্টের জন্য কবি মামাকে অনেক ধন্যবাদ!
     
  • Pls Share This Page:

    Users Viewing Thread (Users: 0, Guests: 0)