1. Hi Guest
    Pls Attention! Kazirhut Accepts Only Bengali (বাংলা) & English Language On this board. If u write something with other language, you will be direct banned!

    আপনার জন্য kazirhut.com এর পক্ষ থেকে বিশেষ উপহার :

    যে কোন সফটওয়্যারের ফুল ভার্সন প্রয়োজন হলে Software Request Center এ রিকোয়েস্ট করুন।

    Discover Your Ebook From Our Online Library E-Books | বাংলা ইবুক (Bengali Ebook)

Collected রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছড়া ও কবিতা সমগ্র

Discussion in 'Collected' started by Tazul Islam, May 15, 2016. Replies: 248 | Views: 11604

  1. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
    [​IMG]
    রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (৮ই মে, ১৮৬১ - ৭ই আগস্ট, ১৯৪১) (২৫ বৈশাখ, ১২৬৮ - ২২ শ্রাবণ, ১৩৪৮ বঙ্গাব্দ) ছিলেন অগ্রণী বাঙালি কবি, ঔপন্যাসিক, সংগীতস্রষ্টা, নাট্যকার, চিত্রকর, ছোটগল্পকার, প্রাবন্ধিক, অভিনেতা, কণ্ঠশিল্পী ও দার্শনিক। তাঁকে বাংলা ভাষার সর্বশ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক মনে করা হয়। রবীন্দ্রনাথকে গুরুদেব, কবিগুরু ও বিশ্বকবি অভিধায় ভূষিত করা হয়।

    রবীন্দ্রনাথের ৫২টি কাব্যগ্রন্থ, ৩৮টি নাটক, ১৩টি উপন্যাস ও ৩৬টি প্রবন্ধ ও অন্যান্য গদ্যসংকলন তাঁর জীবদ্দশায় বা মৃত্যুর অব্যবহিত পরে প্রকাশিত হয়। তাঁর সর্বমোট ৯৫টি ছোটগল্প ও ১৯১৫টি গান যথাক্রমে গল্পগুচ্ছ ও গীতবিতান সংকলনের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। রবীন্দ্রনাথের যাবতীয় প্রকাশিত ও গ্রন্থাকারে অপ্রকাশিত রচনা ৩২ খণ্ডে রবীন্দ্র রচনাবলী নামে প্রকাশিত হয়েছে। রবীন্দ্রনাথের যাবতীয় পত্রসাহিত্য উনিশ খণ্ডে চিঠিপত্র ও চারটি পৃথক গ্রন্থে প্রকাশিত। এছাড়া তিনি প্রায় দুই হাজার ছবি এঁকেছিলেন। রবীন্দ্রনাথের রচনা বিশ্বের বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়েছে। ১৯১৩ সালে গীতাঞ্জলি কাব্যগ্রন্থের ইংরেজি অনুবাদের জন্য তিনি সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন।

    রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কলকাতার এক ধনাঢ্য ও সংস্কৃতিবান ব্রাহ্ম পিরালী ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। বাল্যকালে প্রথাগত বিদ্যালয়-শিক্ষা তিনি গ্রহণ করেননি; গৃহশিক্ষক রেখে বাড়িতেই তাঁর শিক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। আট বছর বয়সে তিনি কবিতা লেখা শুরু করেন। ১৮৭৪ সালে তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা-এ তাঁর "অভিলাষ" কবিতাটি প্রকাশিত হয়। এটিই ছিল তাঁর প্রথম প্রকাশিত রচনা।

    ১৮৭৮ সালে মাত্র সতেরো বছর বয়সে রবীন্দ্রনাথ প্রথমবার ইংল্যান্ডে যান। ১৮৮৩ সালে মৃণালিনী দেবীর সঙ্গে তাঁর বিবাহ হয়। ১৮৯০ সাল থেকে রবীন্দ্রনাথ পূর্ববঙ্গের শিলাইদহের জমিদারি এস্টেটে বসবাস শুরু করেন। ১৯০১ সালে তিনি পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনে ব্রহ্মচর্যাশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন এবং সেখানেই পাকাপাকিভাবে বসবাস শুরু করেন। ১৯০২ সালে তাঁর পত্নীবিয়োগ হয়। ১৯০৫ সালে তিনি বঙ্গভঙ্গ-বিরোধী আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন। ১৯১৫ সালে ব্রিটিশ সরকার তাঁকে নাইট উপাধিতে ভূষিত করেন। কিন্তু ১৯১৯ সালে জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে তিনি সেই উপাধি ত্যাগ করেন। ১৯২১ সালে গ্রামোন্নয়নের জন্য তিনি শ্রীনিকেতন নামে একটি সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯২৩ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্বভারতী প্রতিষ্ঠিত হয়। দীর্ঘজীবনে তিনি বহুবার বিদেশ ভ্রমণ করেন এবং সমগ্র বিশ্বে বিশ্বভ্রাতৃত্বের বাণী প্রচার করেন। ১৯৪১ সালে দীর্ঘ রোগভোগের পর কলকাতার পৈত্রিক বাসভবনেই তাঁর মৃত্যু হয়।
     
    • Like Like x 1
  2. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    কবিতার সুচিপত্রঃ
     
  3. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    রাতন বৎসরের জীর্ণক্লান্ত রাত্রি
    - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর---বলাকা


    পুরাতন বৎসরের জীর্ণক্লান্ত রাত্রি
    ওই কেটে গেল; ওরে যাত্রী।
    তোমার পথের 'পরে তপ্ত রৌদ্র এনেছে আহ্বান
    রুদ্রের ভৈরব গান।
    দূর হতে দূরে
    বাজে পথ শীর্ণ তীব্র দীর্ঘতান সুরে,
    যেন পথহারা
    কোন্‌ বৈরাগীর একতারা।
    ওরে যাত্রী,
    ধূসর পথের ধুলা সেই তোর ধাত্রী;
    চলার অঞ্চলে তোরে ঘূর্ণাপাকে বক্ষেতে আবরি
    ধরার বন্ধন হতে নিয়ে যাক হরি
    দিগন্তের পারে দিগন্তরে।
    ঘরের মঙ্গলশঙ্খ নহে তোর তরে,
    নহে রে সন্ধ্যার দীপালোক,
    নহে প্রেয়সীর অশ্রু-চোখ।
    পথে পথে অপেক্ষিছে কালবৈশাখীর আশীর্বাদ,
    শ্রাবণরাত্রির বজ্রনাদ।
    পথে পথে কন্টকের অভ্যর্থনা,
    পথে পথে গুপ্তসর্প গুপ্তসর্প গূঢ়ফণা।
    নিন্দা দিবে জয়শঙ্খনাদ
    এই তোর রুদ্রের প্রসাদ।
     
    • Like Like x 1
  4. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    ক্ষতি এনে দিবে পদে অমূল্য অদৃশ্য উপহার।
    চেয়েছিলি অমৃতের অধিকার--
    সে তো নহে সুখ, ওরে, সে নহে বিশ্রাম,
    নহে শান্তি, নহে সে আরাম।
    মৃত্যু তোরে দিবে হানা,
    দ্বারে দ্বারে পাবি মানা,
    এই তোর নব বৎসরের আশীর্বাদ,
    এই তোর রুদ্রের প্রসাদ
    ভয় নাই, ভয় নাই, যাত্রী।
    ঘরছাড়া দিকহারা অলক্ষ্মী তোমার বরদাত্রী।
    পুরাতন বৎসরের জীর্ণক্লান্ত রাত্রি
    ওই কেটে গেল, ওরে যাত্রী।
    এসেছে নিষ্ঠুর,
    হোক রে দ্বারের বন্ধ দূর,
    হোক রে মদের পাত্র চুর।
    নাই বুঝি, নাই চিনি, নাই তারে জানি,
    ধরো তার পাণি;
    ধ্বনিয়া উঠুক তব হৃৎকম্পনে তার দীপ্ত বাণী।
    ওরে যাত্রী
    গেছে কেটে, যাক কেটে পুরাতন রাত্রি।



    কলিকাতা, ৯ বৈশাখ, ১৩২৩
     
  5. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    যৌবন রে, তুই কি রবি সুখের খাঁচাতে
    - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর---বলাকা


    যৌবন রে, তুই কি রবি সুখের খাঁচাতে।
    তুই যে পারিস কাঁটাগাছের উচ্চ ডালের 'পরে
    পুচ্ছ নাচাতে।
    তুই পথহীন সাগরপারের পান্থ,
    তোর ডানা যে অশান্ত অক্লান্ত,
    অজানা তোর বাসার সন্ধানে রে
    অবাধ যে তোর ধাওয়া;
    ঝড়ের থেকে বজ্রকে নেয় কেড়ে
    তোর যে দাবিদাওয়া।
    যৌবন রে, তুই কি কাঙাল, আয়ুর ভিখারী।
    মরণ-বনের অন্ধকারে গহন কাঁটাপথে
    তুই যে শিকারি।
    মৃত্যু যে তার পাত্রে বহন করে
    অমৃতরস নিত্য তোমার তরে;
    বসে আছে মানিনী তোর প্রিয়া
    মরণ-ঘোমটা টানি।
    সেই আবরণ দেখ্‌ রে উতারিয়া
    মুগ্ধ সে মুখখানি।
     
  6. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    যৌবন রে, রয়েছ কোন্‌ তানের সাধনে।
    তোমার বাণী শুষ্ক পাতায় রয় কি কভু বাঁধা
    পুঁথির বাঁধনে।
    তোমার বাণী দখিন হাওয়ার বীণায়
    অরণ্যেরে আপনাকে তার চিনায়,
    তোমার বাণী জাগে প্রলয়মেঘে
    ঝড়ের ঝংকারে;
    ঢেউয়ের 'পরে বাজিয়ে চলে বেগে
    বিজয়-ডঙ্কা রে।
    যৌবন রে, বন্দী কি তুই আপন গণ্ডিতে।
    বয়সের এই মায়াজালের বাঁধনখানা তোরে
    হবে খণ্ডিতে।
    খড়গসম তোমার দীপ্ত শিখা
    ছিন্ন করুক জরার কুজ্‌ঝটিকা,
    জীর্ণতারি বক্ষ দু-ফাঁক ক'রে
    অমর পুষ্প তব
    আলোকপানে লোকে লোকান্তরে
    ফুটুক নিত্য নব।
    যৌবন রে, তুই কি হবি ধুলায় লুণ্ঠিত।
    আবর্জনার বোঝা মাথায় আপন গ্লানিভারে
    রইবি কুণ্ঠিত?
    প্রভাত যে তার সোনার মুকুটখানি
    তোমার তরে প্রত্যুষে দেয় আনি,
    আগুন আছে ঊর্ধ্ব শিখা জ্বেলে
    তোমার সে যে কবি।
    সূর্য তোমার মুখে নয়ন মেলে
    দেখে আপন ছবি।



    শান্তিনিকেতন, ৪ চৈত্র, ১৩২২
     
  7. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    ভাবনা নিয়ে মরিস কেন খেপে
    - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর---বলাকা


    ভাবনা নিয়ে মরিস কেন খেপে।
    দুঃখ-সুখের লীলা
    ভাবিস এ কি রইবে বক্ষে চেপে
    জগদ্দলন-শিলা।
    চলেছিস রে চলাচলের পথে
    কোন্‌ সারথির উধাও মনোরথে?
    নিমেষতরে যুগে যুগান্তরে
    দিবে না রাশ-ঢিলা।
    শিশু হয়ে এলি মায়ের কোলে,
    সেদিন গেল ভেসে।
    যৌবনেরি বিষম দোলার দোলে
    কাটল কেঁদে হেসে।
    রাত্রে যখন হচ্ছিল দীপ জ্বালা
    কোথায় ছিল আজকে দিনের পালা।
    আবার কবে কী সুর বাঁধা হবে
    আজকে পালার শেষে।
    চলতে যাদের হবে চিরকালই
    নাইকো তাদের ভার।
    কোথা তাদের রইবে থলি-থালি,
    কোথা বা সংসার।
    দেহযাত্রা মেঘের খেয়া বাওয়া,
    মন তাহাদের ঘূর্ণা-পাকের হাওয়া;
    বেঁকে বেঁকে আকার এঁকে এঁকে
    চলছে নিরাকার।
    ওরে পথিক, ধর্‌-না চলার গান,
    বাজা রে একতারা।
    এই খুশিতেই মেতে উঠুক প্রাণ--
    নাইকো কূল-কিনারা।
    পায়ে পায়ে পথের ধারে ধারে
    কান্না-হাসির ফুল ফুটিয়ে যা রে,
    প্রাণ-বসন্তে তুই-যে দখিন হাওয়া
    গৃহ-বাঁধন-হারা!
     
    • Like Like x 1
  8. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    এই জনমের এই রূপের এই খেলা
    এবার করি শেষ;
    সন্ধ্যা হল, ফুরিয়ে এল বেলা,
    বদল করি বেশ।
    যাবার কালে মুখ ফিরিয়ে পিছু
    কান্না আমার ছড়িয়ে যাব কিছু,
    সামনে সে-ও প্রেমের কাঁদন ভরা
    চির-নিরুদ্দেশ।
    বঁধুর চিঠি মধুর হয়ে আছে
    সেই অজানার দেশে।
    প্রাণের ঢেউ সে এমনি করেই নাচে
    এমনি ভালোবেসে।
    সেখানেতে আবার সে কোন্‌ দূরে
    আলোর বাঁশি বাজবে গো এই সুরে
    কোন্‌ মুখেতে সেই অচেনা ফুল
    ফুটবে আবার হেসে।
    এইখানে এক শিশির-ভরা প্রাতে
    মেলেছিলেম প্রাণ।
    এইখানে এক বীণা নিয়ে হাতে
    সেধেছিলেম তান।
    এতকালের সে মোর বীণাখানি
    এইখানেতেই ফেলে যাব জানি,
    কিন্তু ওরে হিয়ার মধ্যে ভরি
    নেব যে তার গান।
    সে-গান আমি শোনাব যার কাছে
    নূতন আলোর তীরে,
    চিরদিন সে সাথে সাথে আছে
    আমার ভুবন ঘিরে।
    শরতে সে শিউলি-বনের তলে
    ফুলের গন্ধে ঘোমটা টেনে চলে,
    ফাল্গুনে তার বরণমালাখানি
    পরাল মোর শিরে।
     
  9. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    পথের বাঁকে হঠাৎ দেয় সে দেখা
    শুধু নিমেষতরে।
    সন্ধ্যা-আলোয় রয় সে বসে একা
    উদাস প্রান্তরে।
    এমনি করেই তার সে আসা-যাওয়া,
    এমনি করেই বেদন-ভরা হাওয়া
    হৃদয়-বনে বইয়ে সে যায় চলে
    মর্মরে মর্মরে।
    জোয়ার-ভাঁটার নিত্য চলাচলে
    তার এই আনাগোনা।
    আধেক হাসি আধেক চোখের জলে
    মোদের চেনাশোনা।
    তারে নিয়ে হল না ঘর বাঁধা,
    পথে পথেই নিত্য তারে সাধা
    এমনি করেই আসা-যাওয়ার ডোরে
    প্রেমেরি জাল-বোনা।


    শান্তিনিকেতন, ২৯ ফাল্গুন, ১৩২২
     
  10. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    তোমারে কি বারবার করেছিনু অপমান
    - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর---বলাকা


    তোমারে কি বারবার করেছিনু অপমান।
    এসেছিলে গেয়ে গান
    ভোরবেলা;
    ঘুম ভাঙাইলে ব'লে মেরেছিনু ঢেলা
    বাতায়ন হতে,
    পরক্ষণে কোথা তুমি লুকাইলে জনতার স্রোতে।
    ক্ষুধিত দরিদ্রসম
    মধ্যাহ্নে, এসেছে দ্বারে মম।
    ভেবেছিনু, এ কী দায়,
    কাজের ব্যাঘাত এ-যে।' দূর হতে করেছি বিদায়।
    সন্ধ্যাবেলা এসেছিলে যেন মৃত্যুদূত
    জ্বালায়ে মশাল-আলো, অস্পষ্ট অদ্ভুত
    দুঃস্বপ্নের মতো।
    দস্যু ব'লে শত্রু ব'লে ঘরে দ্বার যত
    দিনু রোধ করি।
    গেলে চলি, অন্ধকার উঠিল শিহরি।
    এরি লাগি এসেছিলে, হে বন্ধু অজানা--
    তোমারে করিব মানা,
    তোমারে ফিরায়ে দিব, তোমারে মারিব,
    তোমা-কাছে যত ধার সকলি ধারিব,
    না করিয়া শোধ
    দুয়ার করিব রোধ।
     
    • Like Like x 1

Pls Share This Page:

Users Viewing Thread (Users: 0, Guests: 1)