1. Hi Guest
    Pls Attention! Kazirhut Accepts Only Bengali (বাংলা) & English Language On this board. If u write something with other language, you will be direct banned!

    আপনার জন্য kazirhut.com এর পক্ষ থেকে বিশেষ উপহার :

    যে কোন সফটওয়্যারের ফুল ভার্সন প্রয়োজন হলে Software Request Center এ রিকোয়েস্ট করুন।

    Discover Your Ebook From Our Online Library E-Books | বাংলা ইবুক (Bengali Ebook)

Collected নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর কবিতাসমগ্র

Discussion in 'Collected' started by Tazul Islam, Jul 20, 2016. Replies: 39 | Views: 3880

  1. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    ফলতায় রবিবার
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    কেউ কি শহরে যাবে? কেউ যাবে? কেউই যাব না।
    বরং ঘনিষ্ঠ এই সন্ধ্যার সুন্দর হাওয়া খাব,
    বরং লুণ্ঠিত এই ঘাসে-ঘাসে আকণ্ঠ বেড়াব
    আমি, অমিতাভ আর সিতাংশু।
    সিতাংশু, এই ভাল,
    শহরে ফিরব না। দ্যাখো, অমিতাভ, কতখানি সোনা
    ডুবে গেল নদীর শরীরে। দ্যাখো, তরঙ্গের গায়ে
    নৌকার লণ্ঠন থেকে আলো পড়ে, আলো কাঁপে, আলো
    ভেঙে-ভেঙে যায়।
    কেউ কি শহরে যাবে? কেউ যাবে? কেউই যাব না।
    শহরে প্রচণ্ড ভিড়, অকারণ তুমিল চিৎকার,
    লগ্ন নিয়নের বাতি। শহরে ফিরব না কেউ আর।
    বরং চুপ করে দেখি, অন্ধকারে নদী কত কালো
    হতে পারে, অপচয়ী সূর্য তার সবটুকু সোনা
    কী করে ওড়ায়; দেখি মৃদুকণ্ঠ তরঙ্গমালায়
    নৌকার লণ্ঠন থেকে আলো পড়ে, আলো কাঁপে, আলো
    ভেঙে-ভেঙে যায়।
     
  2. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    প্রিয়তমাসু
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    তুমি বলেছিলে ক্ষমা নেই, ক্ষমা নেই।
    অথচ ক্ষমাই আছে।
    প্রসন্ন হাতে কে ঢালে জীবন শীতের শীর্ণ গাছে।
    অন্তরে তার কোনো ক্ষোভ জমা নেই।
    তুমি বলেছিলে, তমিস্রা জয়ী হবে।
    তমিস্রা জয়ী হলো না।
    দিনের দেবতা ছিন্ন করেছে অমারাত্রির ছলনা;
    ভরেছে হৃদয় শিশিরের সৌরভে।
    তুমি বলেছিলে, বিচ্ছেদই শেষ কথা।
    শেষ কথা কেউ জানে?
    কথা যে ছড়িয়ে আছে হৃদয়ের সব গানে, সবখানে;
    তারও পরে আছে বাঙময় নীরবতা।
    এবং তুষার মৌলি পাহাড়ে কুয়াশা গিয়েছে টুটে,
    এবং নীলাভ রৌদ্রকিরণে ঝরে প্রশান্ত ক্ষমা,
    এবং পৃথিবী রৌদ্রকে ধরে প্রসন্ন করপুটে।
    দ্যাখো, কোনোখানে কো্নো বিচ্ছেদ নেই।
    আছে অনন্ত মিলনে অমেয় আনন্দ, প্রিয়তমা।
     
  3. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    নিতান্ত কাঙাল
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    নিতান্তই ক্লান্ত লোকটা শুধু
    ছোট্ট একটা ঘরের কাঙাল।
    দক্ষিণের জানলা দিয়ে ধুধু
    অফুরন্ত মাঠ দেখবে। আর
    পশ্চিমের জানলা দিয়ে লাল
    সূর্য-ডোবা সন্ধ্যার বাহার।
    নিতান্তই ক্লান্ত লোকটা। শুধু
    ছোট্ট একটা ঘরের কাঙাল!
    নিতান্তই ক্লান্ত লোকটা। তাই
    মিষ্টি একটা মেয়ের কাঙ্গাল।
    যে তাকে খুনসুটি করে প্রায়ই
    রাত জাগাবে। বলবে, ‘কোন দিশি
    লোক তুমি তা বোঝা শক্ত। কাল
    আনতে হবে আলতা এক শিশি।’
    নিতান্তই শান্ত লোকটা। তাই
    মিষ্টি একটা মেয়ের কাঙ্গাল।
    নিতান্তই ভ্রান্ত লোকটা। হায়,
    অল্প-একটু সুখের কাঙাল।
    রৌদ্রে, জলে, উদ্দাম হাওয়ায়
    ঢের ঘুরেছে। বুঝল না এখনও
    ইচ্ছার আগুনে খেয়ে জ্বাল
    একটু-সুখে তৃপ্তি নেই কোনো!
    নিতান্তই ভ্রান্ত লোকটা। হায়,
    অল্প-একটু সুখের কাঙাল।
     
  4. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    নিজের বাড়ি
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    ভাবতে ভাল লেগেছিল, এই ঘর, ওই শান্ত উঠোন,
    এই খেত, ওই মস্ত খামার–
    সবই আমার।
    এবং আমি ইচ্ছে হলেই পারি
    ইচ্ছেমতন জানলা-দরজা খুলতে।
    ইচ্ছেমতন সাজিয়ে তুলতে
    শান্ত সুখী একান্ত এই বাড়ি।
    ভাবতে ভাল লেগেছিল, চেয়ার টেবিল,
    আলমারিতে সাজানো বই, ঘোমটা-টানা নরম আলো,
    ফুলদানে ফুল, রঙের বাটি,
    আলনা জুড়ে কাপড়-জামার
    সুবিন্যস্ত সমারোহ, সবই আমার।
    এবং আমি ইচ্ছে হলেই পারি
    দেয়ালে লাল হলুদ রঙের কাড়াকাড়ি
    মুছে ফেলতে সাদার শান্ত টানে।
    এই যে বাড়ি, এই তো আমার বাড়ি।
    ভাবতে ভাল লেগেছিল, এই ঘর, ওই ঠাণ্ডা উঠোন,
    এই খেত, ওই মস্ত খামার,
    আলমারিতে সাজানো বই,
    ফুলদানে ফুল, রঙের বাটি,
    টবের গোলাপ, নরম আলো,
    আলনা জুড়ে কাপড়-জামার
    শৃঙ্খলিত সমারোহ, সবই আমার, সব-ই আমার।
    ভাবতে ভাল লেগেছিল, কাউকে কিছু না জানিয়ে
    হঠাৎ কোথাও চলে যাব।
    ফিরে এসে আবার যেন দেখতে পারি,
    যে-নদী বয় অন্ধকারে, তারই বুকের কাছে
    বাড়িটা ঠায় দাঁড়িয়ে আছে।
    ওই যে বাড়ি, ওই তো আমার বাড়ি।
     
  5. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    দেয়াল
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    চেনা আলোর বিন্দুগুলি
    হারিয়ে গেল হঠাৎ–
    এখন আমি অন্ধকারে, একা।
    যতই রাত্রি দীর্ণ করি দারুণ আর্তরবে,
    এই নীরন্ধ্র নিকষ কালোর কঠিন অবয়বে
    যতই করি আঘাত,
    মিলবে না আর, মিলবে না আর,
    মিলবে না তার দেখা।
    হারিয়ে গেল হঠাৎ আমার
    আলোকলতা-মন,–
    নেই, এখানে নেই;
    হারিয়ে গেল প্রথম আলোর হঠাৎ-শিহরণ,–
    নেই।
    চার-দেয়ালে বন্ধ হয়ে চার দেয়ালের গাতে
    যতই হানি আঘাত, আমার আর্ত আকাঙ্ক্ষায়
    যতই মুক্তিলাভের চেষ্টা করি,
    ততই কঠিন পরিহাসের রাত্রি নামে, আর
    ততই ভয়ের উজান ঠেলে মরি।
    চেনা আলোর বিন্দুগুলি
    হারিয়ে গেল হঠাৎ–
    এখন আমি অন্ধকারে, একা।
    চারদিকে চার-দেয়াল, চোখের দৃষ্টি নিবে আসে,
    শিউরে উঠি অন্ধকারের কঠিন পরিহাসে;
    এই নীরন্ধ্র অন্ধকারে যতই হানি আঘাত,
    আসবে না আর, আসবে না কেউ,
    মিলবে না তার দেখা।
    ভাঙো আমার দেয়াল, আমার দেয়াল।
     
  6. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    দৃশ্যের বাহিরে
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    সিতাংশু, আমাকে তুই যতো কিছু বলতে চাস, বল।
    যতো কথা বলতে চাস, বল।
    অথবা একটাও কথা বলিসনে, তুই
    বলতে দে আমাকে তোর কথা।
    সিতাংশু, আমি যে তোর সমস্ত কথাই জেনে গেছি।
    আমি জেনে গেছি।
    কী বলবি আমাকে তুই, সিতাংশু ? বলবি যে,
    ঘরের ভিতরে তোর শান্তি নেই, তোর
    শান্তি নেই, তোর
    ঘরের ভিতরে বড়ো অন্ধকার, বড়ো
    অন্ধকার, বড়ো
    বেশি অন্ধকার তোর ঘরের ভিতরে।
    (সিতাংশু, আমি যে তোর সমস্ত কথাই জেনে গেছি।
    আমি জেনে গেছি।)
    কী বলবি আমাকে তুই, সিতাংশু ? বলবি যে,
    দৃশ্যের সংসার থেকে তুই
    (সংসারের যাবতীয় অস্থির দৃশ্যের থেকে তুই)
    স্থিরতর কোনো-এক দৃশ্যে যেতে গিয়ে
    গিয়েছিস স্থির এক দৃশ্যহীনতায়।
    অনন্ত রাত্রির ঠাণ্ডা নিদারুণ দৃশ্যহীনতায়।
    দৃশ্যের বাহিরে তোর ঘরে।
    জানিরে, সিতাংশু, তোর ঘরের চরিত্র আমি জানি।
    ওখানে অনেক কষ্টে শোয়া চলে, কোনোক্রমে দাঁড়ানো চলে না।
    ও-ঘরে জানালা নেই, আর
    ও-ঘরে জানালা নেই, আর
    মাথার দু’ইঞ্চি মাত্র উর্ধ্বে ছাত। মেঝে
    স্যাঁতস্যাঁতে। দরোজা নেই। একটাও দরোজা নেই। তোর
    চারদিকে কাঠের দেয়াল।
    এবং দেয়ালে নেই ঈশ্বরের ছবি।
    এবং দেয়ালে নেই শয়তানের ছবি।
    (তা যদি থাকত, তবে ঈশ্বরের ছবির অভাব
    ভুলে যাওয়া যেত।) নেই, তা-ও নেই তোর
    নির্বিকার ঘরের ভিতরে।
    না, আমি যাব না তোর ঘরের ভিতরে।
    যাব না, সিতাংশু, আমি কিছুতে যাব না।
    যেখানে ঈশ্বর নেই, যেখানে শয়তান নেই, কোনো-কিছু নেই,
    প্রেম নেই, ঘৃণা নেই, সেখানে যাবো না।
    যাব না, যেহেতু আমি মূর্তিহীন ঈশ্বরের থেকে
    দৃশ্যমান শয়তানের মুখশ্রী এখনো ভালোবাসি।
    না, আমি যাব না তোর ঘরের ভিতরে।
    সিতাংশু, তুই-ই বা কেন গেলি ?
    অস্থির দৃশ্যের থেকে কেন গেলি তুই
    স্থির নির্বিকার ওই দৃশ্যহীনতায় ?
    সিতাংশু, আমি যে তোর সমস্ত কথাই জেনে গেছি।
    আমি জেনে গেছি।
    দৃশ্যের ভিতর থেকে দৃশ্যের বাহিরে
    প্রেম-ঘৃণা-রক্ত থেকে প্রেম-ঘৃণা-রক্তের বাহিরে
    গিয়ে তোর শান্তি নেই, তোর
    শান্তি নেই, তোর
    ঘরের ভিতরে বড়ো অন্ধকার, বড়ো
    অন্ধকার, বড়ো
    বেশি অন্ধকার তোর ঘরের ভিতরে।
     
  7. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    তোমাকে বলেছিলাম
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    তোমাকে বলেছিলাম, যত দেরীই হোক,
    আবার আমি ফিরে আসব।
    ফিরে আসব তল-আঁধারি অশথগাছটাকে বাঁয়ে রেখে,
    ঝালোডাঙার বিল পেরিয়ে,
    হলুদ-ফুলের মাঠের উপর দিয়ে
    আবার আমি ফিরে আসব।
    আমি তোমাকে বলেছিলাম।
    আমি তোমাকে বলেছিলাম, এই যাওয়াটা কিছু নয়,
    আবার আমি ফিরে আসব।
    ডগডগে লালের নেশায় আকাশটাকে মাতিয়ে দিয়ে
    সূর্য যখন ডুবে যাবে,
    নৌকার গলুইয়ে মাথা রেখে
    নদীর ছল্‌ছল্‌ জলের শব্দ শুনতে-শুনতে
    আবার আমি ফিরে আসব।
    আমি তোমাকে বলেছিলাম।
    আজও আমার ফেরা হয়নি।
    রক্তের সেই আবেগ এখন স্তিমিত হয়ে এসেছে।
    তবু যেন আবছা-আবছা মনে পড়ে,
    আমি তোমাকে বলেছিলাম।
     
  8. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    জুনের দুপুর
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    উপর থেকে নীচে তাকাও, দ্যাখো,
    ছায়াছবির মতোই হঠাৎ
    চোখের সামনে থেকে
    এরোড্রমটা দৌড়ে পালায়
    পৃথিবী যায় বেঁকে।
    রইল পড়ে দশটা-পাঁচটা,
    ঝাঁকড়া-মাথা মেপ্‌ল গাছটা,
    চওড়া-ফিতে রাস্তাটা আর
    নদীর নীলচে শাড়ি,
    ফুলের বাগান, গির্জে, খামার,
    ছক-কাটা ঘরবাড়ি।
    উপর থেকে নীচে তাকাও, দ্যাখো,
    লক্ষ লক্ষ টুকরো দৃশ্য
    নতুন করে ভেঁজে
    একটি অসীম রিক্ততাকে
    তৈরি করল কে যে।
    নোত্‌রদামের গির্জেটা আর
    হোটেল, ক্যাফে, মস্ত টাওয়ার
    মিলিয়ে দিচ্ছে মেঘের শান্ত
    হাল্কা নীলের তুলি।
    মিলায় মিলায় পারির প্রান্ত-
    রেখার দৃশ্যগুলি।
    উপর থেকে নীচে তাকাও, দ্যাখো,
    দৃশ্যহারা দীর্ঘ দুপুর
    সমস্ত দিক ধুধু,
    জুনের আকাশ আপন মনে
    রৌদ্র পোহায় শুধু।
    কোথায় ফাটছে আগুন-বোমা,
    কোথায় কাইরো, কোথায় রোমা!
    শূন্য মোছায় দেখার ভ্রান্তি
    নিত্যদিনের চোখে।
    বিশ্ববিহীনতার শান্তি অসীম ঊর্ধ্বলোকে।
     
  9. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    জলের কল্লোলে
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    জলের কল্লোলে যেন কারও কান্না শোনা গেল,
    অরণ্যের মর্মরে কারও দীর্ঘনিশ্বাস।
    চকিত হয়ে ফিরে তাকাতেই দেখা গেল
    নির্বান্ধব সেই বাবলা গাছটাকে।
    আর আর তাকে গাছ বলে মনে হল না;
    মনে হল,
    সংসারের সমস্ত রহস্য জেনে নিয়ে
    কেউ যেন জলের ধারে এসে দাঁড়িয়েছে।
    ফলত, যা হয়,
    অত্যন্ত বিব্রত বোধ করল সেই মানুষটি।
    কেননা, জীবনের কাছে মার খেয়ে
    প্রকৃতির কাছে সে তার দুঃখ জানাতে এসেছিল।
    প্রকৃতি নিজেরই এত দুঃখ
    সে তা জানত না।
    জলের কল্লোলে যে কারও কান্না ধ্বনিত হতে পারে,
    অরণ্যের মর্মরে কারও নিশ্বাস,
    সে তা বোঝেনি।
    এবং ভাবেনি যে নদীর ধারের বাবলা গাছটাকে আজ
    বিষণ্ণ একটা মানুষের মত দেখাবে।
    নদীকে সে তার দুঃখ জানাতে এসেছিল;
    জানাল না।
    সন্ধ্যার আগেই সে তার ঘরে ফিরে এল।
     
  10. Tazul Islam
    Offline

    Tazul Islam Kazirhut Lover Member

    Joined:
    Apr 20, 2016
    Messages:
    19,473
    Likes Received:
    538
    Gender:
    Male
    Location:
    Dhaka
    Reputation:
    142
    Country:
    Bangladesh Bangladesh
    চলন্ত ট্রেনের থেকে
    - নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী---অন্ধকার বারান্দা


    চলন্ত ট্রেনের থেকে ধুধু মাঠ, ঘরবাড়ি এবং
    গাছপালা, পুকুর, পাখি, করবীর ফুলন্ত শাখায়
    প্রাণের উচ্ছ্বাস দেখে যতটুকু তৃপ্তি পাওয়া যায়,
    সেইটুকুই পাওয়া। তার অতিরিক্ত কে দেবে তোমাকে।
    দুই চক্ষু ভরে তবে দ্যাখো ওই সূর্যাস্তের রঙ
    পশ্চিম আকাশে; দ্যাখো পুঞ্জিত মেঘের গাঢ় লাল
    রক্ত-সমারোহ; দ্যাখো উম্মত্ত উল্লাসে ঝাঁকে-ঝাঁকে
    সবুজ ভুট্টার খেতে উড্ডীন অসংখ্য হরিয়াল।
    চলন্ত ট্রেনের থেকে ধুধু মাঠ, ঘরবাড়ি অথবা
    ঘরোয়া স্টেশনে আঁকা চিত্রপটে করবীর ঝাড়,
    গাছপালা, পুকুর, পাখি, গৃহস্থের সচ্ছল সংসার,
    কর্মের আনন্দ দুঃখ দেখে নাও; আকাশের গায়ে
    লগ্ন হয়ে আছে দ্যাখো প্রাণের প্রকাণ্ড লাল জবা।
    সমস্ত পৃথিবী এসে দাঁড়িয়েছে ট্রেনের জানলায়।
     

Pls Share This Page:

Users Viewing Thread (Users: 0, Guests: 0)